1. admin@ainbarta.com : admin :
  2. kay.swader42@8filmov.ru : kayb032939 :
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১১:১৬ অপরাহ্ন
প্রধান খবর
পৈশাচিকতার চূড়ান্ত উদাহরণ লাশকাটা ঘরে মৃত কিশোরীদের ধর্ষণ করেও অনুতপ্ত নয় মুন্না! নারায়ণগঞ্জে ‘মৃত’ মেয়ের ফিরে আসা দখলে থাকলেই ভূমির মালিকানা নয় বাস পোড়ানোর মামলায় আগাম জামিন পেলেন বিএনপির শতাধিক নেতা-কর্মী দুদকের একই কর্মকর্তা দিয়ে অনুসন্ধান-তদন্তের বৈধতা নিয়ে রুলের রায় ৮ ডিসেম্বর আইনে ‘ধর্ষিতা’ শব্দের পরিবর্তে ‘ধর্ষণের শিকার’ ব্যবহারের সুপারিশ চার্জ গঠনের তিন কার্যদিবসেই ধর্ষণের রায় সাকিবকে কুপিয়ে হত্যার হুমকিদাতা মহসিন গ্রেফতার সাকিবকে হত্যার হুমকি দেওয়া যুবককে খুঁজছে পুলিশ শিক্ষা সচিবসহ চার জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল বাপ্পী জানাজাতেও অংশ নিতো, রাতে লাশ চুরি করে নিয়ে আসতো ঘরে আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশের অভিযোগ ঝুলে গেল মীর নাছিরের জামিন সাইবার অপরাধের শিকার নারীদের সেবা দিতে পুলিশের আলাদা ইউনিট মাস্ক পরা নিশ্চিতে ঢাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নির্দেশ স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা : ইমাদুলের আমৃত্যু কারাদণ্ড প্রত্যাহার মাদক মামলার আসামির সাজা বৃক্ষ রোপণ, বাবা-মায়ের সেবা মাইন্ড এইড হাসপাতালের মার্কেটিং ম্যানেজারসহ ১০ জন রিমান্ডে সাতদিনের রিমান্ডে এসআই আকবর ডাক্তার ছাড়াই চলছিল ‘মাইন্ড এইড’ হাসপাতাল! সগিরা মোর্শেদ হত্যায় ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ২৬ নভেম্বর ভুয়া গ্রেফতারি পরোয়ানা ঠেকাতে ৭ নির্দেশনার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ পরিবার ও আইনজীবীর জিম্মায় যুদ্ধাপরাধ মামলার ২ আসামির জামিন পরীক্ষা ছাড়াই বিচারপতির ছেলে আইনজীবী: রিট খারিজের বিরুদ্ধে আপিল সাতক্ষীরা আদালতের পিপির সদস্য পদ স্থগিত করেছে আইনজীবী সমিতি বদির ভাইসহ আরও ২১ ইয়াবা কারবারি জামিনে মুক্ত টেস্টি ট্রিটকে লাখ টাকা জরিমানা সিনিয়র অফিসারের পরামর্শে পালিয়েছিলাম’ (ভিডিও) জমি রেজিস্ট্রেশনের ৮ দিনের মধ্যে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নামজারি ব্যারিস্টার সুমন ও ইশরাতের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল বৃদ্ধা মায়ের সেবা করার শর্তে জামিন: হাইকোর্ট অনির্দিষ্টকালের জন্য আদালত বর্জন বাগেরহাট আইনজীবী সমিতির ডেপুটি অ্যাটর্নি রুপা করোনায় আক্রান্ত, রিট শুনানি একমাস পেছালো প্রতারণা সামাজিক বন্ধনের ভাইরাস ও অপরাধ! রিট নিষ্পত্তির আগেই ওসি প্রদীপকে পদোন্নতি দেয়ায় নোটিশ সেলিমপুত্র ইরফানের রিমান্ড শুনানি পেছাল দুই নবজাতকের মৃত্যু : ৩ হাসপাতালের কাছে ব্যাখ্যা চাইলেন হাইকোর্ট গুজব ঠেকাতে তৎপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাইবার ইউনিট অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী-কন্যা হত্যা: মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির ফাঁসি কার্যকর দুদকে তলবের বৈধতা চ্যালেঞ্জ, ডেপুটি অ্যাটর্নি রুপার রিট স্ত্রীর সম্মতি ছাড়া যৌন সম্পর্ককে ‘ধর্ষণ’ গণ্য করতে লিগ্যাল নোটিশ নর্থ সাউথ শিক্ষার্থী পা‌য়েল হত্যায় ৩ জ‌নের মৃত্যুদণ্ড প্রতারণা সামাজিক বন্ধনের ভাইরাস ও অপরাধ! বলাৎকারকে ধর্ষণ গণ্য করে এ অপরাধে মৃত্যুদণ্ড প্রয়োগে আইনি নোটিশ মিথ্যা মামলা করায় বাদীর ৩ মাসের কারাদণ্ড দুর্নীতি-জালিয়াতি: ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল জান্নাতুলকে দুদকে তলব নোয়াখালীকাণ্ডে নারীর স্বামীও জড়িত, দায় এড়াতে পারেন না এএসপি-ওসি হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান ও বডিগার্ড জাহিদ ৩ দিনের রিমান্ডে সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীর মামলা রিফাত হত্যায় অপ্রাপ্তবয়স্ক ১১ আসামির দণ্ড, ৩ জন খালাস মীর হেলাল কারাগারে আইনবিজ্ঞানে চার ইমামের অবদান” ‘বিচারক-আইনজীবীদের প্রশিক্ষণে সহযোগিতা করবে ভারত’ অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল পদে আসছেন কোন দুই আইনজীবী বরগুনায় আদালত প্রাঙ্গণে তিন স্তরের নিরাপত্তা এরফান সেলিমের বাসা থেকে বিদেশি মদ-বিয়ার-অস্ত্র উদ্ধার ঢাবির সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুই মামলা তদন্তের নির্দেশ যে শর্তে জামিন পেলেন কবি টোকন ঠাকুর মাউশির মহাপরিচালক বোর্ড চেয়ারম্যানসহ ৪৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্টকে মারধর, হাজী সেলিমের ছেলে সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা ঢাবি শিক্ষক জিয়ার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই মামলা কবরস্থান পরিচালনায় নতুন নীতিমালার অনুমোদন বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবিতে ঢাবি অধ্যাপক জিয়া রহমানকে নোটিশ ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই মাদক উদ্ধার করে বিক্রির অভিযোগে ২ পুলিশ ক্লোজড বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে ধর্ষণ : কারাফটকেই বিয়ের নির্দেশ আদালতের বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি ৭ কার্য দিবসেই দেনমোহর ও খোরপোষের ডিক্রি পেলেন কুড়িগ্রামের নার্গিস করোনা পরীক্ষায় জালিয়াতি: সাক্ষী হাজির করতে না পারায় দুই ওসিকে শোকজ ধর্ষণের ঘটনা সালিশের মাধ্যমে মীমাংসা কেন ফৌজদারি অপরাধ নয়: হাইকোর্ট পি কে হালদারকে দেশে ফেরামাত্র গ্রেপ্তারের নির্দেশ পুলিশ হেফাজতে রায়হান হত্যা: কনস্টেবল টিটু ৫ দিনের রিমান্ডে এমসি কলেজে ধর্ষণ : ১৬৭ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদন, শুনানি ১ নভেম্বর অবৈধ সম্পদ অর্জন: ডিআইজি মিজানসহ চারজনের বিচার শুরু ৮ সপ্তাহের আগাম জামিন পেলেন সাংসদ নিক্সন চৌধুরী আন্তর্জাতিক চাইল্ড পর্নোগ্রাফী চক্রের তিন সদস্য গ্রেফতার দুই অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেলের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন রাষ্ট্রপতি অস্ত্র-মাদক মামলায় সম্রাটের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ৩০ নভেম্বর আদালতে ক্যাসিনো সম্রাট, মুক্তি চেয়ে নেতাকর্মীদের স্লোগান নকল মাস্ক : শারমিনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১৩ ডিসেম্বর জামিন নিতে হাইকোর্টে নিক্সন চৌধুরী চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির একাউন্টিং, বিলিং ও ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার উদ্বোধন. সুপ্রিম কোর্টের দৈনন্দিন কার্যতালিকা আরো সহজ করার জন্য ‘সুপ্রিম কোর্ট অব বাংলাদেশ কজ লিস্ট (Supreme Court of Bangladesh-Cause List)’ নামের একটি অ্যাপ উদ্বোধন করা হয়েছে। স্বাধীনতার ৪৮ বছরও স্বীকৃতি না পাওয়া ৫ শহীদ মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি চেয়ে রিট বিচারকের সক্রিয় প্রচেষ্টায় ৩০ বছরের পুরাতন বিরোধ ৩ দিনেই নিষ্পত্তি! আসামি জেলে নাকি বাহিরে আছে তা নিশ্চিত হয়ে ওকালতনামায় স্বাক্ষরের নির্দেশ ধর্ষণের ঘটনায় সালিশকে ফৌজদারি অপরাধ ঘোষণার নির্দেশনা চেয়ে রিট সাংবাদিক কাজল কেন জামিন পাবেন না, প্রশ্ন হাইকোর্টের ক্ষমা চাইলেন ওকালতনামায় স্বাক্ষর না করা ডেপুটি জেলার ঢাবি শিক্ষার্থী খুনের বিচার শেষ হয়নি ৪৩ বছরেও অভিনেত্রী শমী কায়সারের বিরুদ্ধে পুনঃতদন্ত প্রতিবেদন ১৫ নভেম্বর জীবনরক্ষাকারী ওষুধ সহজলভ্য করার নির্দেশ হাইকোর্টের চেকের মামলা শুনানি শুধু যুগ্ম দায়রা জজ আদালতে কলারোয়ায় একই পরিবারের ৪ সদস্য খুন: ৫ দিনের রিমান্ডে রায়হানুল রায়হানের শরীরে ১১৩ আঘাত, উপড়ে ফেলা হয় দু’টি নখ কবরস্থানে ‘মৃত শিশু’ নড়ে ওঠার ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট হাইকোর্টের রায়ে আইন সংশোধন, আপসের সুযোগে কমবে মামলার জট নিক্সন চৌধুরীর জামিন আবেদন ধর্ষণ মামলা আপোষ করায় আসামি খালাস: আইনজীবীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ রায়হানের হত্যাকারীদের পক্ষেও লড়বেন না আইনজীবীরা টাঙ্গাইলে গণধর্ষণ মামলায় ৫ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ফেসবুকে ধর্ম নিয়ে কটূক্তি: দর্জির ৭ বছরের কারাদণ্ড আইনজীবী জিসাদের মৃত্যু: জামিন মেলেনি স্ত্রীসহ ৪ আসামির ঢাকায় ওসি-এসআইয়ের বিরুদ্ধে হেফাজত নিবারণ আইনে মামলা পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু: রায়হানের লাশ তুলে ফের তদন্তের নির্দেশ নুরের বিরুদ্ধে এবার সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন,২০০০: সহজ ও বিশ্লেষণধর্মী আলোচনা ৯০ দিনের মধ্যে ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠনের নির্দেশ ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ডের আইনে মন্ত্রিসভার সায় অস্ত্র আইনে পাপিয়া দম্পতির ২০ বছরের কারাদণ্ড মামলা জট কমানোকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছেন নবনিযুক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল সুপ্রিম কোর্টের সকল আইটি অফিসারকে আপিল বিভাগের শোকজ ইউনুছ আলীকে ৩ মাস আইন পেশা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেলদের পদত্যাগে আইনাঙ্গনে যে গুঞ্জন পাপিয়া দম্পতির অস্ত্র মামলার রায় দুপুরে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, সংশোধিত আইন মন্ত্রিসভায় উঠছে কাল এবার অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মুরাদ রেজার পদত্যাগ বিচারককে হাইকোর্টের প্রশ্ন: ‘আপনি কি জুডিশিয়াল অফিসার নাকি সিল মারা অফিসার?’ ক্ষমা চাইলেন ধর্ষণ মামলায় ৪ শিশুকে কারাগারে পাঠানো বিচারক লালমনিরহাটে আইনজীবীকে হত্যার চেষ্টা বিচারকের ল্যাপটপ ছিনতাই, দুই আসামি ৩ দিনের রিমান্ডে ‘এবার পকেটে থাকবে আইনজীবীর চেম্বারের সবকিছু’ ফেনীর সিজেএম কোর্টে সেপ্টেম্বরে মামলা নিষ্পত্তির হার ছিল ১২০.৭% ত্রয়োদশ সহকারী জজ নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচী নির্ধারণ শুধু নামের মিলে কারাগারে নিরপরাধ ৮০ বছরের বৃদ্ধ আবারও রাতে বসলো হাইকোর্ট।জামিন মিল্লো ধর্ষণে অভিযুক্ত আসামি ৪ শিশুর । বাগেরহাটে স্ত্রীকে হত্যার পর লাশ গুমের চেষ্টা পুলিশ সদস্যের ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ড করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য সরকার আইন সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। নতুন অ্যাটর্নি জেনারেল হয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির বর্তমান সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন। এখনও ধর্ষিত হইনি। কিন্তু হতে পারতাম, বহুবার!’ বেড়াতে যাওয়া কিশোরীকে কিশোর গ্যাংয়ের ধর্ষণের ভিডিও ফাঁস, আটক ৪ বিধবাকে ধর্ষণ, ৬০ হাজার টাকায় রফাদফা করলেন নারী কাউন্সিলর মিন্নির খালাসে হাইকোর্টে করা আপিলে ২১ যুক্তি দেলোয়ারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা সেই নারীর. সেই এসআই হেলাল চাকরিচ্যুত শিশু ধর্ষণের অভিযোগ, টাকা-হুমকি দিয়ে মীমাংসার চেষ্টা অক্টোবরের মধ্যেই পিতা-মাতার ভরণপোষণ বিধিমালা প্রণয়নের নির্দেশনা নারী নির্যাতন-ধর্ষণ বন্ধে সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মীদের মানববন্ধন বাউফলে জোড়া খুন মামলার প্রধান আসামি ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে ইউপি সদস্যসহ গ্রেপ্তার আরও ২ খালাস চেয়ে মিন্নির আপিল ফেসবুকে না আসলে বেগমগঞ্জের ঘটনা গোপনই থেকে যেত: হাইকোর্ট বুয়েটের আবরার হত্যা মামলার সাক্ষ্য শুরু ভিপি নুরুল হক নুরসহ ছয় জনকে গ্রেফতারের আবেদন উচ্চ আদালতে বাড়ছে জামিন জালিয়াতি গৃহকর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে আদালতের ৬ নির্দেশনা নারীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও: দেলোয়ার নারায়ণগঞ্জ থেকে গ্রেফতার শিক্ষকদের টাইম স্কেল নিয়ে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ না মানায় নোটিশ পরীক্ষা ছাড়াই বিচারপতির ছেলে আইনজীবী: রুল শুনানি ১৪ অক্টোবর ইডেনের সাবেক অধ্যক্ষ মাহফুজা হত্যায় দুই গৃহকর্মীর মৃত্যুদণ্ড নিজেদের সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে আইনে সংশোধনী আনছে ইসি রায়ের কপি নিয়ে ঢাকার পথে মিন্নির বাবা মিন্নির মৃত্যুদণ্ড অনুমোদনের জন্য ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে ইডেন অধ্যক্ষ মাহফুজা হত্যা মামলার রায় আজ সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেলের দুই নাতি।২ শিশুর অধিকার ফেরাতে মধ্যরাতে হাইকোর্টের আদেশ ৪ দফায় ধর্ষণ।আলামত ও নষ্ট করতে চেয়েছিলেন আসামীরা গ্রাহককে না জানিয়ে কল রেকর্ড সংগ্রহ বন্ধের অভিমত হাইকোর্টের ময়মনসিংহ কারাগারের ডেপুটি জেলার অলিভা শারমিনকে তলব। এমসি কলেজে গণধর্ষণ: স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিচ্ছে ৩ আসামি আন্তর্জাতিক প্রো বোনো অ্যাওয়ার্ডে মনোনীত আইনজীবী ইশরাত হাসান ধর্ষণের মামলায় ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগ নেতা ৫ দিনের রিমান্ডে যে কারণে আয়শার মৃত্যুদণ্ড রায় মেনে নিয়েছি তবে আমরা সংক্ষুব্ধ : মিন্নির আইনজীবী রিফাত হত্যা মামলায় মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসি ধর্ষণের মিথ্যা মামলা করায় বাদীর ৫ বছরের কারাদন্ড সম্ভ্রম রক্ষায় আদালতে নতুন অধ্যায়ের সূচনা এমসি কলেজে ধর্ষণ : কলেজ কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতা চ্যালেঞ্জ করে রিট রিফাত হত্যা: মিন্নিসহ ১০ আসামির রায় কাল পা হারানো রাসেলের ক্ষতিপূরণ রায় ১ অক্টোবর তারানা হালিমসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগে মামলা বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের জন্য নতুন আইন হচ্ছে সাইফুর ও অর্জুনের ৫ দিনের রিমান্ড ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ: আদালতে নিজেদের নির্দোষ দাবি সাইফুর-অর্জুনের অস্ত্র মামলায় সাহেদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পুলিশ ফরোয়ার্ডিং লেটারে ব্যক্তিকে গ্রেফতারের সময় ও তারিখ উল্লেখ করার নির্দেশ সাতক্ষীরা জজ কোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট লতিফকে অপসারণের দাবি অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আর নেই রক্ত জোগাড় করে দেয়ার নামে ধর্ষণ : রিমান্ডে দুইজন কখনও ম্যাজিস্ট্রেট, কখনও সাংবাদিক তিনি! কুকুর অপসারণ বন্ধে রিট : আবেদনকারীদের সঙ্গে বসছেন মেয়র এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ : আদালতে গৃহবধূর জবানবন্দি আপিল বিভাগে ভার্চ্যুয়ালি ৪ হাজার ৭৩ মামলা নিষ্পত্তি স্বাস্থ্যের দুর্নীতি রোধে দুদকের সুপারিশ বাস্তবায়ন চেয়ে রিট ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার জের কিশোরকে খুন করে ধরা যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে ভয়ংকর ‘কিশোর গ্যাং’ যেভাবে ধরা পড়লেন প্রধান আসামি সাইফুর ছাত্রলীগ কর্মি সাইফুরের নামে অস্র মামলা হোস্টেলে গণধর্ষণ: ছাত্রলীগের ৬ নেতাসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা ব্লগার ওয়াশিকুর হত্যা: আসামি পক্ষের যুক্তি ২৭ সেপ্টেম্বর সাহেদের জামিন নিয়ে আইনজীবীর ‘নাটক’ সিঁধ কেটে শিশুকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ! পুলিশের ফাঁদে ধর্ষক গ্রেপ্তার অস্ত্র মামলায় পাপিয়া দম্পতির সর্বোচ্চ সাজা চায় রাষ্ট্রপক্ষ। প্রকৌশলী তাকসিম এ খানকে ঢাকা ওয়াসার এমডি নিয়োগের প্রস্তাব চ্যালেঞ্জ করে রিট নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে অযাচিত শর্তারোপ: সরকারকে ৫ প্রতিবন্ধীর আইনি নোটিশ নারায়ণগঞ্জের ‘মৃত’ মেয়েটির ফিরে আসাসহ পুরো ঘটনা বিচারিক অনুসন্ধানের নির্দেশ যানবাহনের ফিটনেস টেস্টিং সেন্টার বাড়ানোর নির্দেশ হাইকোর্টের খাস কামরা থেকে বিচারকের ব্যাগ চুরি স্পা সেন্টারে অভিযান : মালিক ফারিয়াসহ দুজন রিমান্ডে স্বাস্থ্য পরীক্ষার মূল্য তালিকা দাখিলের নির্দেশ ম্যাজিস্ট্রেট স্বামী সম্পদ ও যৌতুকলোভী, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষিকার ফের মাম টাউট-দালাল নির্মূলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্দেশনা জারি ভিপি নূরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবেদন ১৩ অক্টোবর ২২ বছর জেল খাটার পর রায় এলো এরশাদ শিকদারের ২ সহযোগী নির্দোষ আদালতে মামলার শুনানি করতে এসে ধরা খেলেন ‘শিক্ষানবীশ” নুরের বিরুদ্ধে এবার অপহরণ-ধর্ষণ ও ডিজিটাল আইনে মামলা ভিপি নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণে সহযোগিতার মামলা : প্রতিবেদন ৭ অক্টোবর সগিরা মোর্শেদ হত্যা মামলার অভিযোগ গঠন ফের পেছাল মানবপাচার: নৃত্যশিল্পী ইভান ৭ দিনের রিমান্ডে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কিশোরীকে ছিনিয়ে নিয়ে হত্যা ২৪ ঘন্টার মধ্যে আসামী হাজির না করলে শাস্তির নির্দেশ। শিশু চুরি করে ভিক্ষাবৃত্তি: ঢাকার আদালত প্রাঙ্গণ থেকে নারী আটক আইনমন্ত্রীর সহযোগিতায় নবজাতক ফিরে পেলো মায়ের কোল বার কাউন্সিলের আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষা স্থগিত ওসি প্রদীপের অবৈধ সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রের বয়স ১৯ দেখিয়ে এজাহার, বিজিবি সদস্যকে তলব অ্যাটর্নি জেনারেল করোনামুক্ত আবরারের বাবা অসুস্থ, পেছাল সাক্ষ্যগ্রহণ খালেদা জিয়ার আরও চার মামলা স্থগিতই থাকছে রায়ের কপি জালিয়াতি: ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ হাইকোর্টের সাহেদের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলা: রায় ২৮ সেপ্টেম্বর মসজিদে বিস্ফোরণ : তিতাসের ৪ কর্মকর্তাসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে সিআইডি আইন পাসের দুই বছরে মামলার সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে সরকারি খরচে ১৩ কারাবন্দীর পক্ষে আইনজীবী নিয়োগের নির্দেশ না’গঞ্জে ‘মৃত’ ছাত্রীর ফিরে আসা: হাইকোর্টের আদেশ ২৪ সেপ্টেম্বর ৮ বছর পর ধর্ষকের যাবজ্জীবন ব্যারিস্টার আসিফের স্ত্রী-শ্বশুরসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা আটকের পর আসামিকে মিডিয়ার সামনে আনা বিচারকে প্রভাবিত করার সমান: হাইকোর্ট করোনা আক্রান্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে আইসিইউতে স্থানান্তর রিমান্ড শেষে আদালতে তোলা হয়েছে রবিউলকে সাহেদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থায় ইন্টার্নশীপ করার সুযোগ কারাদণ্ডের বদলে পড়তে হবে নামাজ, খাওয়াতে হবে এতিমদের রিফাত হত্যা : ৩০ সেপ্টেম্বর রায়, আইনজীবীর জিম্মায় মিন্নি কুয়েতে এমপি পাপুলের বিচার শুরু বৃহস্পতিবার ব্যারিস্টার আসিফ ইমতিয়াজের মৃত্যু রহস্য উন্মোচনের দাবি সুপ্রিম কোর্ট বারের ৩ জনের হুবহু মিল জবানবন্দি গ্রহণ: ম্যাজিস্ট্রেটকে হাইকোর্টে তলব প্রধানমন্ত্রীকে হত্যাচেষ্টা, ডেথ রেফারেন্স-আপিলের শুনানি শুরু হেফাজতে মৃত্যু : ক্ষতিপূরণের টাকা জমা দিলেন এসআই জাহিদের পরিবার ভুয়া এনআইডি দিয়ে ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র লিবিয়ায় ২৬ জনের মৃত্যু: আসামি সানজিদার জামিন ক্যাসিনো কাণ্ডের অন্যতম হোতা এনু-রূপনের জামিন প্রশ্নে রুল আবরার হত্যার বিচার শুরু আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের বিচার শুরুর আদেশ আজ বাড়ছে মামলা, বেশি ধরাশায়ী সাংবাদিকরা পুলিশ সুপার বরাবরে এসআই’র বিরুদ্ধে অভিযোগ স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ পাবেন আইনজীবীরা : আইনমন্ত্রী বদির বিরুদ্ধে দুদকের করা মামলার বিচার শুরু ক্রসফায়ারে হত্যা: ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা ভুয়া পরিচয়পত্র তৈরিতে ১ লাখ টাকা নিতেন ইসির দুই কর্মী প্রবাসী শ্রমিকের মরদেহ সরকারি খরচে দেশে আনতে আইনি নোটিশ সিনহা হত্যা মামলায় তদন্তের তথ্যাদি প্রকাশ বন্ধে রিট কার্যতালিকা থেকে বাদ মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় হাইকোর্টের ক্ষতিপূরণ সংক্রান্ত আদেশ স্থগিত গণমাধ্যমে তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ না করার জন্য হাইকোর্টে রিট ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলাঃ বিচারক নেই দেশের ৫০ আদালতে র‌্যাবের বাহিরে সারওয়ার আলমের অভিযান পরিচালনার এখতিয়ার প্রশ্নে আইনি নোটিশ পুলিশের অপরাধ তদন্তে কমিশন গঠনের দাবিতে ৫৩ আইনজীবীর লিগ্যাল নোটিশ জামিন বিষয়ে অধস্তন আদালতের প্রতি হাইকোর্টের ৪ নির্দেশনা গুজব রোধে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ‘আসল চিনি’ কক্সবাজারে ভুয়া আইনজীবী আটক সিনহা হত্যা মামলায় এসপি মাসুদকে আসামি করার আবেদন বোনের. স্বাস্থ্য বিধী মেনে কোর্ট খোলার কথা বললেও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধী নামের মিল থাকায় পুলিশের গুলিতে প্রান দিতে হলো এক স্কুল ছাত্রের। করোনায় আক্রান্ত আইনজীবীদের রোগ মুক্তির জন্য দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত নতুন সড়ক পরিবহন আইনে একদিনে ১২৩ মামলা চকরিয়ায় মা-মেয়েকে নির্যাতন: চেয়ারম্যানসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা। কিশোরগঞ্জে আইনজীবী অপহরণের অভিযোগে নারী শিক্ষানবীশ আটক। ইসলাম ধর্ম অবমাননার দায়ে ৬ নাস্তিকের নামে সাইবার মামলা হেফাজতে মৃত্যু : এসআই জাহিদসহ ৩ পুলিশের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিজের অস্ত্র ব্যবহার করতেন প্রদীপ. সিনহা হত্যা মামলায় স্বিকারোক্তি জবানবন্দী দিতে আদালতে ৪ আসামি ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ কেন নয়: হাইকোর্ট এবার বন্ধ হল আলোক হেলথ কেয়ারের পিসিআর পরীক্ষার কার্যক্রম ইসি ও সময় টিভিকে ড. মিজানের লিগ্যাল নোটিশ বিতর্কিত ওয়েব সিরিজ সরাতে সরকারের নিষ্ক্রীয়তা কেন বেআইনি নয় বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার জিএমপি’র এএসআই শাহজাহান ঢাকা বারে টাউট গ্রেফতার গাজীপুর জিএমপি’র জি আর শাখার (কোর্ট) এএসআই শাজাহান ৬ হাজার পিস ইয়াবা সহ আটক ওসি প্রদীপসহ ৩০ জনের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা শাহাবাগ থেকে অপহৃত জিনিয়া নারায়ণগঞ্জ থেকে উদ্ধার। ৪২ জনকে ডিঙিয়ে জ্যেষ্ঠ সুপারের দায়িত্বে, কারাপ্রধানকে ক্ষুব্ধদের চিঠি ওসি প্রদীপের বিপিএম নিয়ে সংসদে যা বললেন রুমিন ফারহানা ‘এক ব্যক্তি কোম্পানি’ খুলতে আইন সংশোধনের প্রস্তাব সংসদে মুসলিম উত্তরাধিকার আইন আরো ৬ মাস বাড়ছে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ জাল দলিল সনাক্ত করার উপায় এবং দলিল জালিয়াতির শাস্তির বিধান ও প্রতিকার মামলা প্রত্যাহার করার নিয়ম সিনহা হত্যায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তদন্ত কমিটির ১৩ দফা সুপারিশ ভিক্ষুক পুর্নবাসনএ মুল্যায়ন কৃত খাতা দিয়ে ঠোংগা বানানোর আবদন নিষ্পত্তি করার নির্দেশ শুধু মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে আইনজীবী সনদ প্রদানের দাবি সংসদে চাকুরী বিজ্ঞপ্তি দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিলেন তাঁরা, আটক ৩০ ঢাকা বারে মহিলা টাউট আটক আপীল বিভাগের নতুন ২ বিচারপতিকে ভার্চ্যুয়াল সংবর্ধনা মারধর ও সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগে সন্তানদের বিরুদ্ধে বাবার মামলা গর্ভবতী মায়েদের চিকিৎসায় অগ্রাধিকার দিন : হাইকোর্ট ইউএনওর ওপর হামলা : যুবলীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ২

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন,২০০০: সহজ ও বিশ্লেষণধর্মী আলোচনা

  • আপডেট টাইমঃ বুধবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৮ বার পড়া হয়েছে

অপহরণ [ধারা-২(খ)]
“অপহরণ” মানে কোন ব্যক্তিকে বলপ্রয়োগ করে অথবা প্রলুব্ধ করে অথবা ফুসলিয়ে অথবা ভুল বুঝিয়ে অথবা ভীতি প্রদর্শন করে কোন স্হান হতে অন্য স্থানে যেতে বাধ্য করাকে বুঝায়।

নবজাতক শিশু [ধারা: ২(চ)]
এখানে নবজাতক শিশু বলতে অনধিক ৪০ দিন বয়সের কোন শিশুকে বোঝানো হবে।

যৌতুক [ধারা: ২(ঞ)]
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ধারা-২(ঞ) + যৌতুক নিরোধ আইন, ২০১৮ এর ধারা-২ (খ) একসাথে মিলিয়ে পড়তে হবে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে কনে পক্ষ বর পক্ষের কাছে যৌতুক চায় এবং বর পক্ষ কনে পক্ষের কাছে যৌতুক চায়। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ও উভয় পক্ষ বিবাহের পণ হিসেবে উভয় পক্ষের কাছে যৌতুক দাবী করে। যৌতুক নিরোধ আইন অনুযায়ী মুসলমানদের ব্যক্তিগত আইন মোতাবেক দেনমোহর, আত্মীয়-স্বজনদের দেয়া উপহার যৌতুকের অন্তর্ভুক্ত হবে না।

শিশু: [ধারা-২(ট)]
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে শিশু বলতে অনধিক ১৬ বছর বয়সের কোন ব্যক্তিকে বুঝায়। আর শিশু আইন,২০১৩ -এ শিশু বলতে অনধিক ১৮ বছর বয়সের কোন ব্যক্তিকে বুঝায়। আবার পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ এর ধারা-২(১৮) অনুযায়ী “শিশু” বলতে ১৮ বছর পূর্ণ হয়নি এমন ব্যক্তিকে বুঝানো হবে। শিশুর বয়সের ব্যাপারে সবগুলো আইন এভাবে মিলিয়ে পড়তে হবে। তাহলে একটা পরিপূর্ণ প্রস্তুতি হয়ে যাবে।

দহনকারী, ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত পদার্থ দ্বারা সংঘটিত অপরাধের শাস্তি [ধারা-৪]
কোন ব্যক্তি যদি দহনকারী, ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত পদার্থ দ্বারা কোন শিশু বা নারীর মৃত্যু ঘটান কিংবা মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টা করেন, তা হলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদন্ড অথবা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডনীয় হবেন এবং অনধিক এক লক্ষ অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হবেন। [ধারা-৪(১)

কোন ব্যক্তি যদি দহনকারী, ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত পদার্থ দ্বারা কোন শিশু বা নারীর দৃষ্টিশক্তি অথবা শ্রবণশক্তি অথবা মুখমন্ডল অথবা যৌনাঙ্গ নষ্ট করেন, তা হলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদন্ড অথবা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডনীয় হবেন এবং অনধিক এক লক্ষ অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হবেন। [ধারা-৪(২)]

কোন ব্যক্তি যদি দহনকারী, ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত পদার্থ দ্বারা কোন শিশু বা নারীর শরীরের অন্য কোন স্থানে আঘাত করেন, তা হলে উক্ত ব্যক্তি অনধিক ১৪ বছর কিন্তু কমপক্ষে ৭ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডনীয় হবেন এবং অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হবেন। [ধারা-৪(২)]

যদি কোন ব্যক্তি দহনকারী, ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত পদার্থ কোন শিশু অথবা নারীর উপর নিক্ষেপ করেন কিংবা নিক্ষেপ করার চেষ্টা করেন, উক্ত ব্যক্তির এমন কাজের ফলে সংশ্লিষ্ট শিশু বা নারীর শারীরিক, মানসিক কিংবা অন্য কোন ক্ষতি না হলে, উক্ত ব্যক্তি অনধিক ৭ বছর কিন্তু কমপক্ষে ৩ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন এবং অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন। [ধারা-৪(৩)]

এখানে অর্থদন্ড দন্ডিত ব্যক্তির নিকট হতে কিংবা তার বিদ্যমান সম্পদ হতে কিংবা তার মৃত্যুর ক্ষেত্রে মৃত্যুর সময় রেখে যাওয়া সম্পদ হতে আদায় করা হবে। [ধারা-৪(৪)]

নারী ও শিশু অপহরণের শাস্তি [ধারা-৭]
যদি কোন ব্যক্তি নারী অথবা শিশুকে অপহরণ করেন, তা হল উক্ত ব্যক্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন অথবা কমপক্ষে ১৪ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন এবং অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।

মুক্তিপণ আদায়ের শাস্তি [ধারা-৮]
যদি কোন ব্যক্তি মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে কোন নারী অথবা শিশুকে আটক করেন, তা হলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদন্ডে অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন এবং অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।

ধর্ষণজনিত কারণে মৃত্যু ইত্যাদির শাস্তি [ধারা-৯]

(১) দন্ডবিধির ৩৭৫ ধারাতে ধর্ষণ (Rape) এর সংজ্ঞা এবং ৩৭৬ ধারাতে ধর্ষণ এর শাস্তির কথা আলোচনা করা হয়েছে। আর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ধারা-৯ এ কোন কোন পরিস্থিতিতে ধর্ষণের শাস্তি কি হবে সেটা আলোচনা করা হয়েছে। বর্তমানে ধর্ষণের সকল মামলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের আওতায় করা হয়ে থাকে। দন্ডবিধির আওতায় এখন আর ধর্ষণের মামলা করা হয় না। দন্ডবিধির আওতায় ধর্ষণের মামলা করার সুযোগ থাকা সত্ত্বেও নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের আত্ততায় ধর্ষণ মামলা করাকে আইনের ভাষায় Doctrine of Implied Repeal বলে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের অধীনে ধর্ষণের মামলা করার কারণ হল এই আইন স্পেশাল আইন। আর স্পেশাল আইনের আত্ততায় মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি হয়ে থাকে।

(২) ধর্ষণের মামলা আমলে(Cognizance) নেয়ার ক্ষেত্রে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা আছে। এখন সে কথাগুলো বিশ্লেষণের মাধ্যমে আলোচনা করার চেষ্টা করব। দন্ডবিধির অধীনে যদি ধর্ষণের মামলা করা হয়ে থাকে তাহলে মামলা আমলে (Cognizance) নিবে প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট। মেট্রোপলিটন এলাকার বাহিরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে প্রথম শ্রেনীর ম্যাজিস্ট্রেট বলা হয়। মেট্রোপলিটন এলাকাতে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটকে প্রথম শ্রেনীর ম্যাজিস্ট্রেট বলা হয়। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের অধীনে কোন ধর্ষণের মামলা হলে সেই মামলা আমলে নিবেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। কোন ম্যাজিস্ট্রেটের এই আইনের অধীনে মামলা আমলে নেয়ার কোন সুযোগ নেই। ম্যাজিস্ট্রেট এর কাছে মামলাটি আসলে সে মামলাটি রেডি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পাঠিয়ে দিবে। তারপর ট্রাইব্যুনাল মামলাটি আমলে নিয়ে বিচার সম্পন্ন করবে।

(৩) দন্ডবিধির ধারা-৩৭৫ এ একটা ব্যতিক্রম বিষয় আলোচনা করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে স্ত্রীর বয়স যদি ১৩ বছরের কম হয়, সেক্ষেত্রে স্বামী যদি স্ত্রীর সাথে যৌন সঙ্গম করে তাহলে সেটা ধর্ষণ (Rape) হিসেবে গণ্য হবে। এখন কথা হল স্বামী যদি স্ত্রীকে ধর্ষণ করে তাহলে এই মামলা আমলে (Cognizance) নিবে কে? ফৌজদারী কার্যবিধির ধারা-৫৬১ এর উপধারা-১ এ বলা আছে, স্বামী কর্তৃক স্ত্রী ধর্ষিত হলে এই অপরাধ আমলে নিবেন একমাত্র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট অথবা চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট। মেট্রোপলিটন এলাকার বাহিরে স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে ধর্ষণ করার মামলা আমলে নিবেন চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। আর মেট্রোপলিটন এলাকাতে এই অপরাধ আমলে নিবেন চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট। তাছাড়া অন্য কোন ম্যাজিস্ট্রেট স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে ধর্ষণের অপরাধ আমলে নিতে পারবে না। এই অপরাধের তদন্তের ক্ষেত্রেও আমরা একটা ব্যতিক্রম লক্ষ্য করব। ফৌজদারী কার্যবিধির ধারা-৫৬১ এর উপধারা-২ এ বলা আছে, স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে ধর্ষণের অপরাধের তদন্ত করবে কমপক্ষে পুলিশ ইন্সপেক্টর পদের কোন পুলিশ অফিসার। তার মানে এস.আই লেভেলের কোন পুলিশ অফিসার এই মামলার তদন্ত করতে পারবে না।

(৪) দন্ডবিধির ৩৭৫ ধারাতে ধর্ষণ (Rape) এর সংজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে। এখানে বলা হয়েছে, কোন নারীকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার সম্মতি ব্যতীত অথবা ভয় দেখিয়ে সম্মতি আদায় করে অথবা অন্যায়ভাবে বুঝিয়ে তার সম্মতি নিয়ে যৌন সহবাস করলে সেটা নারী ধর্ষণ নামে বিবেচিত হবে। নারী ধর্ষণ বলতে নারীর বিনা অনুমতিতে বা ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌনসঙ্গম করা বুঝায়। ইচ্ছার বিরুদ্ধে বলতে প্রত্যক্ষ আগ্রহের অভাবকে বুঝায়। নিদ্রিতা অবস্থায় কোন নারীর সাথে মিলিত হলে সে মিলনকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে মিলন বুঝায়। জড়বুদ্ধি কোন নারীকে তার বুদ্ধির দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে যৌনসঙ্গম করাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে মিলন বুঝাবে। মৃত্যুর ভয়ে বা আঘাতের ভয়ে সম্মতি দেয়াকে সম্মতি বলা চলে না।

(৫) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ৯ ধারার ব্যাখ্যাতে নারী ধর্ষণের সংজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এখানে বলা হয়েছে, কোন পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ১৬ বছরের অধিক বয়সের কোন নারীর সাথে তার সম্মতি ছাড়া বা ভীতি প্রদর্শন করে বা প্রতারণামূলকভাবে তার সম্মতি আদায় করে যৌন সঙ্গম করাকে নারী ধর্ষণ বলে। এখানে আরো বলা হয়েছে, কোন পুরুষ যদি বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ১৬ বছরের কম বয়সের কোন নারীর সাথে তার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করে, তাহলে সেটা নারী ধর্ষণ হিসেবে বিবেচিত হবে।

(৬) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ ধারাতে ধর্ষণ এবং ধর্ষণজনিত কারণে শাস্তির কথা আলোচনা করা হয়েছে। ধারা-৯ এর উপধারা-১ এ বলা হয়েছে, যদি কোন পুরুষ কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহলে তিনি যাবজ্জীবন কারাদন্ডে দন্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হবেন। ধারা-৯ এর উপধারা-২ এ বলা হয়েছে, যদি কোন ব্যক্তি ধর্ষণ বা উক্ত ধর্ষণ পরবর্তী তার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিতা নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তাহলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদন্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অন্যূন এক লক্ষ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হবেন। দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ(Gang Rape) এর ক্ষেত্রে ও ৯ ধারার উপধারা-২ এর শাস্তি প্রযোজ্য হবে।

নোট: দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ (gang rape) করতে গিয়ে কোন নারী বা শিশুকে মৃত্যু ঘটালে বা আহত করলে প্রত্যেক ধর্ষণকারী একই শাস্তি পাবে। অর্থাৎ প্রত্যেক ধর্ষণকারীর শাস্তি হবে মৃত্যুদন্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং এর অতিরিক্ত অন্যূন এক লক্ষ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হবেন।

ধারা-৯ এর উপধারা-৫ নিয়ে কিছু কথা বলা প্রয়োজন। এই উপধারাটি এই আইনের একটি দুর্বলতা। এখানে বলা হয়েছে, যদি পুলিশ হেফাজতে কোন নারী ধর্ষিতা হন, তাহলে হেফাজতকারীকে ধর্ষণের জন্য সরাসরি দায়ী করা হবে। এবং হেফাজতকারীর ব্যর্থতার জন্য তার শাস্তি হবে অনধিক দশ বছর কিন্তু অন্যূন পাঁচ বছর কারাদণ্ড এবং অর্থদন্ড। এখানে শাস্তির পরিমাণ কম হয়ে গিয়েছে।

সুপারিশ: পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন অবস্থায় কোন নারী ধর্ষিতা হলে সেটাতো হেফাজতকারীর সবচেয়ে বড় অপরাধ। এই অপরাধের জন্য যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন পরিবর্তন করা হয়, সেজন্য আইন-প্রণেতাগণের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তাহলে হেফাজতকারী তার দায়িত্ব পালনে আরো সচেষ্ট হবেন।

যৌতুকের জন্য মৃত্যু ঘটানো ইত্যাদির শাস্তি [ধারা-১১]

  • (১) কোন নারীর স্বামী অথবা স্বামীর পিতা, মাতা, অভিভাবক অথবা স্বামীর পক্ষে অন্য কোন ব্যক্তি যদি যৌতুকের জন্য উক্ত নারীর মৃত্যু ঘটান কিংবা মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টা করেন, তাহলে তারা মৃত্যু ঘটানোর জন্য মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত হবেন এবং অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।আর মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টার জন্য যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন এবং অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।
  • (২) কোন নারীর স্বামী অথবা স্বামীর পিতা, মাতা, অভিভাবক অথবা স্বামীর পক্ষে অন্য কোন ব্যক্তি যদি যৌতুকের জন্য উক্ত নারীর মারাত্মক জখম (grievous hurt) ঘটান, তাহলে তারা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে অথবা অনধিক ১২ বছর কিন্তু কমপক্ষে ৫ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন এবং অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।
  • (৩) কোন নারীর স্বামী অথবা স্বামীর পিতা, মাতা, অভিভাবক অথবা স্বামীর পক্ষে অন্য কোন ব্যক্তি যদি যৌতুকের জন্য উক্ত নারীর সাধারণ জখম(simple hurt) ঘটান, তাহলে তারা অনধিক ৩ বছর কিন্তু কমপক্ষে ১ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দন্ডিত হবেন এবং অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন। সম্প্রতি বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের একটি মামলায় সাধারণ জখম (simple hurt) এর ক্ষেত্রে আপোষযোগ্য করা হয়েছে।

ভিক্ষাবৃত্তির উদ্দেশ্যে শিশুকে অঙ্গহানি করার শাস্তি [ধারা-১২]
কোন ব্যক্তি ভিক্ষাবৃত্তির উদ্দেশ্যে শিশুকে অঙ্গহানি করলে তার শাস্তি হবে মৃত্যুদন্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং অর্থদন্ড।

ধর্ষণের ফলে জন্মলাভকারী শিশু সংক্রান্ত বিধান [ধারা-১৩]
ধর্ষণের ফলে কোন শিশু জন্মলাভ করলে উক্ত শিশুকে তার মাতা কিংবা তার মাতৃকুলীয় আত্নীয় স্বজনের তত্ত্বাবধানে রাখা হবে। ধর্ষণের ফলে জন্মলাভকারী শিশু পিতা এবং মাতা উভয়ের পরিচয়ে পরিচিত হবেন। উক্ত শিশুর ভরণপোষণের ব্যয় রাষ্ট্র বহন করবে। ছেলে সন্তান ২১ বছর বয়স পর্যন্ত ভরণপোষণ পাবেন। মেয়ে সন্তান বিয়ে হওয়ার আগে পর্যন্ত ভরণপোষণ পাবেন। পঙ্গু সন্তান স্বীয় ভরণপোষণের যোগ্যতা অর্জন করা না পর্যন্ত ভরণপোষণ পাবেন। ধর্ষণের ফলে জন্মলাভকারী সন্তানের ভরণপোষণের টাকা সরকার ধর্ষকের নিকট থেকে আদায় করবে। ধর্ষকের বিদ্যমান সম্পত্তি থেকে টাকা আদায় করা সম্ভব না হলে, ভবিষ্যতে ধর্ষক যে সম্পদের মালিক হবে সেখান থেকে আদায় করা হবে।

সংবাদ মাধ্যমে নির্যাতিতা নারী ও শিশুর পরিচয় প্রকাশের ব্যাপারে বাধা-নিষেধ [ধারা-১৪]
নারী ও শিশুর ব্যাপারে সংঘটিত অপরাধ সম্পর্কে কোন সংবাদ মাধ্যমে এমনভাবে পরিবেশন করা হবে যাতে করে উক্ত নারী বা শিশুর পরিচয় প্রকাশ না পায়। [ধারা-১৪(১)]

যদি কোন ব্যক্তি উপরের বিধান লঙ্ঘন করেন, তাহলে তিনি অনধিক ২ বছরের কারাদণ্ডে অথবা অনধিক ১ লক্ষ টাকা অর্থদন্ডে অথবা উভয়দন্ডে দন্ডিত হবেন। [ধারা-১৪(২)]

মিথ্যা মামলা দায়ের করার শাস্তি। [ধারা-১৭]
কোন ব্যক্তি যদি এই আইনের অধীনে অন্য কোন ব্যক্তির ক্ষতিসাধনের উদ্দেশ্যে মিথ্যা মামলা কিংবা অভিযোগ দায়ের করেন,তাহলে উক্ত ব্যক্তির শাস্তি হবে অনধিক ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং অর্থদন্ড। [ধারা-১৭(১)]

কোন ব্যক্তির লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল উপ-ধারা-(১) এর অধীনে সংঘটিত অপরাধের অভিযোগ গ্রহণ ও মামলার বিচার করতে পারবেন। [ধারা-১৭(২)]

দ্রষ্টব্য: ধারা-১৭(নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন) + CrPC (ধারা-২৫০) + আইন-শৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুত বিচার) আইন (ধারা-৬) + দুর্নীতি দমন কমিশন আইন (ধারা-২৮গ) + মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন, ২০১২ (ধারা-১৫) একসাথে মিলিয়ে পড়তে হবে। এই ধারাগুলোতে মিথ্যা অভিযোগ দায়েরের শাস্তির কথা বলা হয়েছে।

অপরাধের তদন্ত [ধারা-১৮]

  • অভিযুক্ত ব্যক্তি অপরাধ সংঘটনের সময় পুলিশ কর্তৃক হাতেনাতে ধৃত হলে, তাহার ধৃত হবার পরবর্তী ১৫ কার্য দিবসের মধ্যে অপরাধের তদন্ত সম্পন্ন করতে হবে।
  • অভিযুক্ত ব্যক্তি অপরাধ সংঘটনের সময় পুলিশ কর্তৃক হাতেনাতে ধৃত না হলে,নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের নিকট হতে তদন্তের আদেশ প্রাপ্তির তারিখ হতে ৬০ কার্য দিবসের মধ্যে অপরাধের তদন্ত সম্পন্ন করতে হবে।[ধারা-১৮(১)]

কোন যুক্তিসঙ্গত কারণে উপ-ধারা (১) অনুযায়ী তদন্ত সম্পন্ন করতে না পারলে, তদন্তকারী কর্মকর্তা কারণ লিপিবদ্ধ করে অতিরিক্ত ৩০ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত কার্য সম্পন্ন করবেন।তৎসম্পর্কে নিয়ন্ত্রণকারী কর্মকর্তা অথবা তদন্তের আদেশ প্রদানকারী ট্রাইব্যুনালকে লিখিতভাবে অবহিত করবেন।[ধারা-১৮(২)]

উপ-ধারা (২) অনুযায়ী তদন্ত সম্পন্ন করতে না পারলে, তদন্তকারী কর্মকর্তা উক্ত সময়সীমা অতিক্রান্ত হবার ২৪ ঘন্টার মধ্যে তদন্ত কার্য সম্পন্ন না হওয়া সম্পর্কে তার নিয়ন্ত্রণকারী কর্মকর্তা অথবা তদন্তের আদেশ প্রদানকারী ট্রাইব্যুনালকে লিখিতভাবে অবহিত করবেন। [ধারা-১৮(৩)]

উপ-ধারা (৩) অনুযায়ী তদন্ত কার্য সম্পন্ন না হওয়া সম্পর্কে অবহিত হওয়ার পর নিয়ন্ত্রণকারী কর্মকর্তা অথবা তদন্তের আদেশ প্রদানকারী ট্রাইব্যুনাল উক্ত অপরাধের তদন্তভার অন্য কোন কর্মকর্তার নিকট হস্তান্তর করতে পারবেন।

ক. অভিযুক্ত ব্যক্তি অপরাধ সংঘটনের সময় পুলিশ কর্তৃক হাতেনাতে ধৃত হলে, তদন্তের আদেশ প্রাপ্তির তারিখ হতে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে অপরাধের তদন্ত সম্পন্ন করবেন।

খ. অভিযুক্ত ব্যক্তি অপরাধ সংঘটনের সময় পুলিশ কর্তৃক হাতেনাতে ধৃত না হলে,নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের নিকট হতে তদন্তের আদেশ প্রাপ্তির তারিখ হতে ৩০ কার্য দিবসের মধ্যে অপরাধের তদন্ত সম্পন্ন করবেন।[ধারা-১৮(৪)]

বিচার পদ্ধতি [ধারা-২০]

ক. নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন,২০০০ এর অধীনে কোন অপরাধের বিচার কেবলমাত্র “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”-এ বিচারযোগ্য হবে। [ধারা-২০(১)]

খ. “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”-এ মামলার শুনানী একবার শুরু হলে উহা শেষ না হওয়া পর্যন্ত প্রতি কর্মদিবসে একটানা চলবে। [ধারা-২০(২)]

গ. বিচারের জন্য মামলা প্রাপ্তির তারিখ হতে ১৮০ দিনের মধ্যে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” বিচার কাজ সমাপ্ত করবে। [ধারা-২০(৩)]

নোট: এখানে কিছু কথা বলা প্রয়োজন।ফৌজদারী কার্যবিধির ৩৩৯গ ধারা অনুযায়ী কোন দায়রা জজ,অতিরিক্ত দায়রা জজ অথবা যুগ্ম দায়রা জজ বিচারের জন্য মামলা প্রাপ্তির তারিখ থেকে ৩৬০ দিনের মধ্যে বিচার কাজ সমাপ্ত করবেন। কিন্তু এখানে বলা হয়েছে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” ১৮০ দিনের মধ্যে বিচার কাজ সমাপ্ত করবেন। আমরা জানি “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর বিচারক হলেন জেলা ও দায়রা জজ পদমর্যাদার একজন বিচারক। বিচারকার্য সমাপ্তির সময়সীমা ১৮০ দিন না হয়ে ৩৬০ দিন হওয়া দরকার ছিল। কিন্তু নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ একটি বিশেষ আইন। আর ফৌজদারী কার্যবিধি একটি সাধারণ আইন। বিশেষ আইন আর সাধারণ আইনের মধ্যে যখন দ্বন্দ্ব দেখা দেয়, তখন বিশেষ আইনে যেটা বলা থাকবে সেটাই বলবৎ হবে। তাই এখানে বিচার কাজ সমাপ্তির সময়সীমা ১৮০ দিন কথাটা সঠিক হবে।

ঘ. “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” ১৮০ দিনের মধ্যে বিচার কাজ সমাপ্ত করতে না পারলে, মামলার আসামীকে জামিনে মুক্তি দিতে পারবে। আর যদি আসামীকে জামিনে মুক্তি দেয়া না হয় তাহলে ট্রাইব্যুনাল তার কারণ লিপিবদ্ধ করে রাখবে। [ধারা-২০(৪)]

ঙ. কোন মামলার বিচার কাজ শেষ না করে যদি ট্রাইব্যুনালের বিচারক বদলি হয়ে যায়, তাহলে মামলাটি যে পর্যায়ে ছিল সেখান থেকে পরবর্তী স্থলাভিষিক্ত বিচারক বিচার কাজ করবেন। দ্বিতীয় কথা হল পূর্ববর্তী বিচারক যে সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন, পরবর্তীতে স্থলাভিষিক্ত বিচারকের সে সাক্ষীর সাক্ষ্য পুনরায় গ্রহণ করার প্রয়োজন হবে না।

ব্যতিক্রম: তবে ন্যায় বিচারের স্বার্থে পরবর্তীতে সাক্ষীকে তলব করে পুনরায় তার সাক্ষ্য গ্রহণ করা যেতে পারে।[ধারা-২০(৫)]

চ. কোন ব্যক্তির আবেদনের ভিত্তিতে অথবা ট্রাইব্যুনালের স্বীয় বিবেচনায় (suo motu) এই আইনের ৯ ধারার(ধর্ষণ) অধীন অপরাধের বিচার কাজ রুদ্ধদ্বার কক্ষে (trial in camera) করতে পারবে। [ধারা-২০(৬)]

ফৌজধারী কার্যবিধির প্রয়োগ [ধারা-২৫]

ক. নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর অধীনে কোন অপরাধের অভিযোগ দায়ের, তদন্ত, বিচার ও নিষ্পত্তি করার ক্ষেত্রে উক্ত আইনের বিধানাবলী অনুসরণ করা হবে। উক্ত আইন যদি কোন বিষয় কাভার না করে তখন ফৌজদারী কার্যবিধির বিধান অনুসরণ করা হবে। যেমন- নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর অধীনে কোন অপরাধের তদন্ত পদ্ধতি সম্পর্কে উক্ত আইনের ১৮ ধারাতে বলা হয়েছে। সুতরাং এক্ষেত্রে ফৌজদারী কার্যবিধির বিধান অনুসরণ করা হবে না। [ধারা-২৫(১)]

খ. “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”-এ অভিযোগকারী ব্যক্তির পক্ষে মামলা পরিচালনা করবেন পাবলিক প্রসিকিউটর। অধস্তন আদালতে সরকার পক্ষের আইনজীবীকে পাবলিক প্রসিকিউটর বলা হয়। উচ্চ আদালতে সরকার পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবীকে এ্যাটর্নী জেনারলে বলা হয়। উচ্চ আদালত বলতে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগ-কে বুঝানো হয়। [ধারা-২৫(২)

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল প্রতিষ্ঠা [ধারা-২৬]

ক. নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন,২০০০ এর অধীনে সংঘটিত অপরাধ বিচারের জন্য সরকার প্রত্যেক জেলা সদরে একটি করে ট্রাইব্যুনাল প্রতিষ্ঠা করবে। প্রয়োজনবোধে সরকার একটি জেলায় একাধিক ট্রাইব্যুনাল গঠন করতে পারবে। ট্রাইব্যুনালের নাম হবে,”নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”। [ধারা-২৬(১)]

খ. “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” একজন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত হবে। সরকার জেলা ও দায়রা জজগণের মধ্যে থেকে একজনকে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর বিচারক নিয়োগ করবেন। [ধারা-২৬(২)]

গ. একটি জেলার অধস্তন আদালতের প্রধান হলেন জেলা ও দায়রা জজ। সরকার প্রয়োজন মনে করলে জেলা ও দায়রা জজকে তার দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসেবে” এর বিচারক হিসেবে নিয়োগ দিতে পারেন। [ধারা-২৬(৩)]

ঘ. এই ধারা মতে জেলা ও দায়রা জজ বলতে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজকে অন্তর্ভুক্ত করবে। তার মানে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। [ধারা-২৬(৪)]

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের এখতিয়ার [ধারা-২৭]

ক. পুলিশ কর্মকর্তার লিখিত রিপোর্টের ভিত্তিতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল কোন অভিযোগ আমলে নিবেন। তবে সে পুলিশ কর্মকর্তাকে অবশ্যই কমপক্ষে সাব-ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার হতে হবে। এছাড়াও সরকারের নিকট থেকে সাধারণ বা বিশেষ আদেশ দ্বারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তির লিখিত রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” কোন অভিযোগ আমলে নিতে পারে। [ধারা-২৭(১)]

খ. পুলিশ অফিসার অভিযোগকারীর অভিযোগ গ্রহণ না করলে, এক্ষেত্রে অভিযোগকারী হলফনামা সহকারে সরাসরি “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”-এ অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন।

(১) তারপর ট্রাইব্যুনাল অভিযোগকারীকে পরীক্ষা করে সন্তুষ্ট হলে অভিযোগটি অনুসন্ধান(inquiry) করার জন্য কোন জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট অথবা অন্য কোন ব্যক্তিকে নির্দেশ প্রদান করবেন।অতঃপর অনুসন্ধানের জন্য নির্দেশপ্রাপ্ত ব্যক্তি অভিযোগটি অনুসন্ধান করে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর নিকট রিপোর্ট প্রদান করবেন।

(২) ট্রাইব্যুনাল অভিযোগকারীকে পরীক্ষা করে সন্তুষ্ট না হলে অভিযোগটি সরাসরি নাকচ (reject) করে দিবেন। [ধারা-২৭(১ক)]

গ. (১) পুলিশ অফিসার অভিযোগকারীর অভিযোগ গ্রহণ না করলে, এক্ষেত্রে অভিযোগকারী হলফনামা সহকারে সরাসরি “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”-এ অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন।

তারপর ট্রাইব্যুনাল অভিযোগকারীকে পরীক্ষা করে সন্তুষ্ট হলে অভিযোগটি অনুসন্ধান (inquiry) করার জন্য কোন জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট অথবা অন্য কোন ব্যক্তিকে নির্দেশ প্রদান করবেন। অতঃপর অনুসন্ধানের জন্য নির্দেশপ্রাপ্ত ব্যক্তি অভিযোগটি অনুসন্ধান করে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর নিকট রিপোর্ট প্রদান করবেন। রিপোর্ট পাওয়ার পর ট্রাইব্যুনাল এই মর্মে সন্তুষ্ট হলেন যে, অভিযোগকারী কোন পুলিশ কর্মকর্তাকে অথবা সরকারের নিকট হতে সাধারণ বা বিশেষ আদেশ দ্বারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে কোন অপরাধের অভিযোগ গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করে ব্যর্থ হয়েছেন। তখন “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” অনুসন্ধান রিপোর্ট ও অভিযোগের ভিত্তিতে অপরাধটি আমলে (cognizance) নিবেন।

(২) পুলিশ অফিসার অভিযোগকারীর অভিযোগ গ্রহণ না করলে, এক্ষেত্রে অভিযোগকারী হলফনামা সহকারে সরাসরি “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল”-এ অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন।

তারপর ট্রাইব্যুনাল অভিযোগকারীকে পরীক্ষা করে সন্তুষ্ট হলে অভিযোগটি অনুসন্ধান (inquiry) করার জন্য কোন জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট অথবা অন্য কোন ব্যক্তিকে নির্দেশ প্রদান করবেন। অতঃপর অনুসন্ধানের জন্য নির্দেশপ্রাপ্ত ব্যক্তি অভিযোগটি অনুসন্ধান করে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর নিকট রিপোর্ট প্রদান করবেন। রিপোর্ট পাওয়ার পর ট্রাইব্যুনাল এই মর্মে সন্তুষ্ট হলেন যে, অভিযোগকারী কোন পুলিশ কর্মকর্তাকে অথবা সরকারের নিকট হতে সাধারণ বা বিশেষ আদেশ দ্বারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে কোন অপরাধের অভিযোগ গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করে ব্যর্থ হননি অথবা অভিযোগের সমর্থনে কোন প্রাথমিক সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া যায়নি। সেক্ষেত্রে ট্রাইব্যুনাল অভিযোগটি নাকচ(reject) করে দিবেন। [ধারা-২৭(১খ)]

ঘ. “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেটের অনুসন্ধান(inquiry) রিপোর্ট প্রাপ্তির পর দেখলেন, অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ সম্পর্কে কার্যক্রম গ্রহণের কোন সুপারিশ নেই। তখন ট্রাইব্যুনাল ন্যায়বিচারের স্বার্থে কারন উল্লেখপূর্বক স্বেচ্ছায় (suo motu) অভিযোগ আমলে নিতে পারবেন। [ধারা-২৭(১গ)]

ঙ. নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর অধীন কোন অপরাধের সাথে অন্য আইনের কোন অপরাধ এমনভাবে জড়িত থাকে। এক্ষেত্রে ন্যায় বিচারের স্বার্থে উভয় অপরাধের বিচার ট্রাইব্যুনাল একসাথে করতে পারবে। [ধারা-২৭(৩)]

উদাহরণ- শামীম নামে একজন ব্যক্তি ফাতেমা বেগমকে মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে আটক করে। অতঃপর ফাতেমা বেগমের পরিবার শামীম নামক ব্যক্তিকে মুক্তিপণ না দিলে সে ধারালো ছুরি দিয়ে ফাতেমা বেগমকে আঘাত করে। এক্ষেত্রে শামীমকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ৮ ধারা (মুক্তিপণ আদায়ের শাস্তি) + দন্ডবিধির ৩২৬ ধারা (মারাত্মক আঘাত) মোতাবেক চার্জ গঠন করে ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করা হয়। এখন কথা হলো পেনাল কোডের আওতায় সংঘটিত কোন অপরাধের বিচার করার ক্ষমতা “নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” এর আছে কিনা? নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ২৭(৩) ধারা মোতাবেক ন্যায় বিচারের স্বার্থে অন্য আইনের কোন অপরাধ উক্ত আইনের কোন অপরাধের সাথে জড়িত থাকলে ট্রাইব্যুনাল বিচার করতে পারবে।

আপীল [ধারা-২৮]
“নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল” কর্তৃক প্রদত্ত আদেশ অথবা রায় অথবা আরোপিত দন্ড দ্বারা সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি (aggrieved person) উক্ত আদেশ অথবা রায় অথবা দন্ডাদেশ প্রদানের তারিখ হতে ৬০ দিনের মধ্যে হাইকোর্ট বিভাগে আপীল দায়ের করতে পারবেন।

নোট: নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ২৮ ধারায় আপীল দায়েরের সময়সীমার কথা বলা হয়েছে। এখানে আপীল নিষ্পত্তির সময়সীমার কথা বলা হয়নি। যেহেতু এখানে আপীল নিষ্পত্তির সময়সীমার কথা বলা হয়নি, সেহেতু এক্ষেত্রে উক্ত আইনের ২৫ ধারা মোতাবেক ফৌজদারী কার্যবিধির বিধানাবলী অনুসরণ করা হবে।

ক. ফৌজদারী কার্যবিধির ৪৪২ক ধারায় বলা হয়েছে,আপিলকারী আপীল দায়েরের পর আদালত রেসপন্ডেন্ট বরাবর নোটিস জারী করবে।নোটিস জারীর ৯০ দিনের মধ্যে আপীল আদালত আপীল নিষ্পত্তি করবে।[ধারা-৪৪২ক(১)]

খ. সময় নির্ণয়ের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র আদালতের কর্মের দিনগুলো গণনা করা হবে।[ধারা-৪৪২ক(৩)]

ধারা-২৯: মৃত্যুদন্ড অনুমোদন
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল কাউকে মৃত্যুদন্ড প্রদান করলে অত্র মামলার নথিপত্র ফৌজদারী কার্যবিধির ধারা-৩৭৪ এর বিধান অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগে পাঠাতে হবে। রায় ঘোষণার ৩ দিনের মধ্যে [Cr.R.O এর বিধি ১১৮ অনুযায়ী] হাইকোর্ট বিভাগে মামলার নথিপত্র পাঠাতে হবে। হাইকোর্ট বিভাগের অনুমোদন ছাড়া মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা যাবে না।

ধারা-৩১: নিরাপত্তামূলক হেফাজত
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচার চলাকালে ট্রাইব্যুনাল উক্ত নারী ও শিশুকে কারাগারের বাহিরে সরকারী কর্তৃপক্ষের হেফাজতে বা ট্রাইব্যুনালের বিবেচনায় অন্য কোন ব্যক্তি বা সংস্থার হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিতে পারবে। এই আইনের ২০(৮) ধারায় বলা হয়েছে, কোন নারী বা শিশুকে নিরাপদ হেফাজতে রাখার আদেশ প্রদানের ক্ষেত্রে ট্রাইব্যুনাল উক্ত শিশু বা নারীর কল্যাণ ও স্বার্থ বিবেচনা করবেন।

ধারা-৩১ক: ট্রাইব্যুনালের জবাবদিহিতা

ক. কোন মামলা ধারা-২০(৩) এর উল্লেখিত সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তি হবার ক্ষেত্রে ট্রাইব্যুনালকে এর কারণ লিপিবদ্ধ করে একটি প্রতিবেদন ৩০ দিনের মধ্যে সুপ্রীম কোর্টের নিকট দাখিল করতে হবে। যার একটি অনুলিপি সরকারের নিকট প্রেরণ করতে হবে।

খ. একই ভাবে কোন মামলা ধারা-২০(৩) এর উল্লেখিত সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তি হবার ক্ষেত্রে পাবলিক প্রসিকিউটর ও সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাকে এর কারণ লিপিবদ্ধ করে একটি প্রতিবেদন ৩০ দিনের মধ্যে সরকারের নিকট দাখিল করতে হবে। যার একটি অনুলিপি সুপ্রীম কোর্টে প্রেরণ করতে হবে।

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর
All rights reserved © 2020 ainbarta.com
Theme Customized By BreakingNews